টেকি দুনিয়ার টুকিটাকি

বাংলাদেশে মুভি বাস, দেখা যাবে চতুর্মাত্রিক চলচ্চিত্র!

জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর নিরবেই এক বিপ্লব ঘটানোর উদ্যোগ নিয়েছে। দেশে বিজ্ঞানমনস্ক প্রজন্ম গড়ে তোলা ও বিজ্ঞানশিক্ষাকে জনপ্রিয় করতে তারা অদ্ভুত সুন্দর কিছু সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বিজ্ঞানের তত্ত্বকথায় 'অজ্ঞান' হওয়ার ভয় নয়, বরং বিজ্ঞানকে ভালবাসার উপলক্ষ করে দিতে যাচ্ছে জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর।

এই পৃথিবী, গ্রহ নক্ষত্রের সমাহার, মহাকাশের বিচিত্র ভুবন। আকাশে চোখ মেলে তাকালে কেমন অসীম এক জগতে মন হারিয়ে যায়। কৌতুহলে মস্তিষ্ক জানতে চায়, কি আছে ওই জগতে, কেমন সে জগত...বিজ্ঞান অসীমের পানে চোখ মেলার সাহসকে সমর্থন দেয়। তাই, কৌতুহল মেটাবার তাগিদে জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর অবজারভেটরি ভ্যানের ব্যবস্থা চালু করেছে। যে ভ্যান চলে যাবে দেশের আনাচে কানাচে। সাথে থাকবে শক্তিশালী টেলিস্কোপ, যার মাধ্যমে অনন্ত নক্ষত্রবীথিকে দেখার সুযোগ পাবে উৎসাহী বিজ্ঞানমনস্ক কৌতুহলী শিক্ষার্থীরা।

শুধু তা-ই নয়, দুটি নতুন অবজারভেটরি ভ্যানের সাথে চালু হয়েছে ৩ টি নতুন মুভি বাস! এর আগে দুটি মিউজুবাস থাকলেও নতুন করে গত মাসে আরো ৩টি ভ্রাম্যমাণ বাসের উদ্ভোধন হয়। এখন বাসগুলো সারাদেশে ভ্রমণের জন্য তৈরি। যেহেতু এখন পরীক্ষার মৌসুম চলছে, তাই কিছুদিন বাদে বাসগুলো ছড়িয়ে যাবে শিক্ষার্থীদের তরে। তবে, এখন জাদুঘরের অভ্যন্তরেই বাস ও অবজারভেটরি ভ্যান শিক্ষার্থীদের কৌতুহল মেটানোর কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।

মুভি বাসে যা যা আছে:
নতুন আসা বাংলাদেশের এই ভ্রাম্যমাণ মুভি বাসগুলো ২০ আসন বিশিষ্ট। বিশেষভাবে নির্মিত মুভি বাসের প্রতিটি সিটের সাথে যুক্ত করা আছে ভার্চুয়াল রিয়্যালিটি সম্পন্ন হেডসেট। এই মুভি বাসে বিশেষ সিটে চড়ে বসে শিক্ষার্থীরা বিজ্ঞান ও মহাকাশ নির্ভর চলচ্চিত্র ও ডকুমেন্টারি ৩৬০ ডিগ্রি অ্যাঙ্গেল ভিউতে দেখার সুযোগ পাবে। সরাসরি ঘটনার সাথে একাত্মতা ও বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিকে অতি নিকট থেকে অনুভব করার জন্যে এ এক অসাধারণ উদ্যোগ, সন্দেহ নেই৷

জাদুঘরে লাইব্রেরিয়ান কামরুল ইসলাম বলেন, "মুভি বাসে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের বিজ্ঞানভিত্তিক বিভিন্ন মুভি দেখানো হবে। অবজারভেটরি বাসে টেলিস্কোপের সাহায্যে মহাকাশের বিভন্ন গ্রহ-উপগ্রহ, নক্ষত্র দেখানো হবে। শিক্ষার্থীরা যাতে হেসেখেলে বিজ্ঞান শিখতে পারে সে জন্য আমাদের এই আয়োজন।"

জাদুঘরে প্রদর্শন সময়:
জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর বৃহস্পতিবারে বন্ধ থাকে। শুক্রবার দিন ২.৩০ থেকে সন্ধ্যা ৭ টা পর্যন্ত খোলা। শনিবার সকাল ৯টা থেকে ৬টা এবং অন্যান্য দিন সকাল ৯ টা থেকে বিকেল ৫ টা পর্যন্ত জাদুঘরটি খোলা থাকে।

৮টি গ্যালারি সংযুক্ত জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘরের প্রবেশ মূল্য টিকেট ১০ টাকা।

বিশেষ আকর্ষণ:
প্রতি শুক্র ও শনিবার সন্ধ্যায় আকাশ মেঘমুক্ত থাকা সাপেক্ষে ১০ টাকা টিকেটের বিনিময়ে শক্তিশালী টেলিস্কোপের সাহায্যে চাঁদ, শুক্রগ্রহ, মঙ্গলগ্রহ, শনিগ্রহ, বৃহস্পতিগ্রহ, এ্যান্ড্রোমিডা গ্যালাক্সি, রিংনেবুলা, সেভেন সিস্টার, জোড়াতারা ও তারার ঝাঁক পর্যবেক্ষণ করা যায়।

4D মুভি বাস:

জাদুঘরে চাইলে আপনি মুভি বাসে চতুর্মাত্রিক চলচ্চিত্র উপভোগ করতে পারেন, টিকেট মূল্য যার ৪০ টাকা। বাসের অভ্যন্তরে বিশেষ সিটে বসে ক্ষণিকের জন্যে হারিয়ে যেতে পারেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির অনন্য এক ভুবনে।

অতএব, ঢাকার শেরে বাংলানগর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘরে একদিনের একটা ভ্রমণ হয়ে যেতেই পারে, কে জানে দিনশেষে হয়ত বিজ্ঞানের প্রতি অন্যরকম এক ভালবাসাকে সঙ্গে নিয়েই ফিরবেন আপনি!