এই লম্বা কঠিন সময়ে হাসতে ভুলে যাচ্ছিলাম প্রাণ খুলে। মন খারাপ করা সময়, মন খারাপ করা সব খবর চারপাশে। এর মধ্যে তামিম একের পর এক শো করে আমাদের জন্যে মুক্ত বাতাস হয়ে এলেন...

হুমায়ুন আহমেদের একটা বইয়ে পড়েছিলাম খুব ছোটবেলায়, অসুস্থ মানুষ স্বভাবতই সেবার যোগ্য, সেবা করতে হয় সুস্থ মানুষের। কথাটার অনেক রকম ব্যাখ্যা হয়ত থাকবে, কিন্তু শিশুমনে বেশ ভাল প্রভাব ফেলেছিল তখন। 

এই দুর্দিনে যারা সেবা পাবার যোগ্য, তাদের জন্যে সাধ্যমত সবাই কিছু না কিছু করছেন। অন্য সবার মত তামিম ইকবালও ব্যাপকভাবে অসংখ্য মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। তার কিছু খবরে আসছে, অনেক কিছুই আসেনি। সে অন্য প্রসঙ্গ।

তামিম আরো যে বড় একটা কাজ করলেন তা হল আমাদের মত 'সুস্থ' মানুষদের পাশেও দাঁড়ালেন। এই লম্বা কঠিন সময়ে হাসতে ভুলে যাচ্ছিলাম প্রাণ খুলে। মন খারাপ করা সময়, মন খারাপ করা সব খবর চারপাশে। এর মধ্যে তামিম একের পর এক শো করে আমাদের (যারা একটু আধটু ক্রিকেট ভালবাসি) জন্যে মুক্ত বাতাস হয়ে এলেন। একে একে মুশফিক, মাহমুদুল্লাহ এসে আমাদের ক্রিকেটের গল্প করলেন। ক্যাপ্টেন মাশরাফি হাসলেন, হাসালেন। সাবেক ক্রিকেটাররা স্মৃতিচারণে ফিরিয়ে আনলেন ক্রিকেটের গোঁড়ার সব খবর, জানালেন ভিত্তি তৈরির সংগ্রামের ইতিহাস।

মিঃ হাইজিন: জীবাণুমুক্ত হাতের প্রতিশ্রুতি

রোহিত, ডু প্লেসিকে এনে হঠাৎ চমক দিলেন তামিম। চমক তখনো বাকি ছিল- আনলেন বিরাট কোহলিকে! স্রেফ ক্রিকেট নিয়ে কী অসাধারণ সব দর্শন জানলাম সেদিন। সত্যিকারের দার্শনিক উইলিয়ামসনও এলেন। ওয়াসিম আকরামের মত লিজেন্ডের দেখা মিললো। ক্রিকেট গুরু সালাউদ্দীনের সাথে ঠাট্টায় মাতলেন ৪ জন। একেবারে ঘরোয়া মত করে আড্ডা দিলেন তারা। বুঝলাম ড্রেসিংরুমে ঠিক এসবই হয়। আর মাশরাফি লোকটার মাথায় আসলেই একটু 'ছিট' আছে। 

শো'য়ের ইতি টানলেন চমৎকার এক বার্তা দিয়ে। একটু অপূর্ণতা রইল, সব ভালোরই হয়ত তা থেকে যায়। অসাধারণ উপভোগ করলাম প্রোগ্রাম সব। যারা অতিথি হয়ে এলেন, তাদেরও কৃতজ্ঞতা। 

ব্লেস ইউ, তামিম। থ্যাংক ইউ ফর এভ্রিথিং।

লেখক- সৈয়দ তারেক আহসান ঈগল


শেয়ারঃ


এই বিভাগের আরও লেখা