কি অদ্ভুত দেশ আমাদের ভেবেছেন? মাত্র এক মাস আগে দেশটা ছাড়তে পারলে লোকটা বেঁচে থাকতো। হয়তো তার বাচ্চাটা একটু বড় হলে বাপের পিঠে চড়ে খেলতে পারতো...

শুভ কামাল: 

যে রায়হান মারা গেল পুলিশের হাতে, তার এক মাস পর আমেরিকা আসার কথা ছিল। সে মিশিগানেই আসতো, তার কিছু কাজিন আমার বউয়ের পরিচিত। পুলিশ আসলে রায়হানের বাচ্চার ভবিষ্যতটাও নষ্ট করে দিল। রায়হান ছিলো মেইন এপ্লিক্যান্ট, সে আসতে না পারলে তার আড়াই মাসের সন্তানও আসতে পারবে না।

কি অদ্ভুত দেশ আমাদের ভেবেছেন? মাত্র এক মাস আগে দেশটা ছাড়তে পারলে লোকটা বেঁচে থাকতো। হয়তো তার বাচ্চাটা একটু বড় হলে বাপের পিঠে চড়ে খেলতে পারতো, বাপের ঘাড়ে উঠে মেলায় যেতে পারতো। এই বিষয়টা ভাবলেই আর স্বাভাবিক থাকা যাচ্ছে না। যাদের সন্তান আছে, বা অনাগত সন্তান নিয়ে যারা স্বপ্ন দেখেন তারা সবাই বিষয়টা বুঝবেন। যদি বলি এই দেশে আর কোনদিন আসবোই না, তাহলে কি কেউ আমাকে দোষ দিবেন?

নিহত রায়হান উদ্দিন। ছবি- প্রথম আলো

ভাবতাম যারা সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডের সাথে জড়িত বা বই টই পড়ে তারা এই আকবর ভূঁইয়ার মত জানোয়ার হতে পারে না। সে ইউটিউবে নাটক বানানোর সাথে জড়িত ছিল। আমার ধারণাটা ভুল ছিল সেটা বলবো না, বরং বলা যায় ইউটিউব নাটক আর আমাদের ট্র‍্যাডিশনাল সাংস্কৃতিক নাটকের মাঝে পার্থক্য আছে। বলা যায় এযুগে ইউটিউব নাটকে চেহারা দেখানোই মুখ্য, সেখানে যা মানুষ বলে তা বাস্তব জীবনে প্রতিফলনের কোন ন্যূনতম তাগিদ তারা অনুভব করে না।

এ ধরনের ঘটনার বিপরীতে মাফিয়ার লোকেরা নিজেদের লোকদের কোন শাস্তি দিবে না, তাই কোনপ্রকার বিচারের আশা বাদই দিয়ে দেন। যা করার নিজেদের করতে হবে। সামাজিকভাবে এদের বর্জন করুন, সে যে দলের হয়ে নাটক করতো তা থেকে বহিষ্কার করুন। দেখা হলে তাদের সামনে সশব্দে থুতু ফেলুন। আর কিছু করতে না পারলে ঘৃণা করার বিধান ধর্মেও আছে।

সিলেটের মানুষ বেশ জেগেছে দেখা যায়। এভাবেই এসব ঘটনার বিরুদ্ধে এলাকায় এলাকায় প্রতিবাদ আর প্রতিরোধ গড়ে তুলুন। নইলে দিনশেষে আসলে কেউই নিরাপদ না... কেউ না...

এই বাচ্চাটাকে কি জবাব দেবে বাংলাদেশ?

*

প্রিয় পাঠক, চাইলে এগিয়ে চলোতে লিখতে পারেন আপনিও! লেখা পাঠান এই লিংকে ক্লিক করে- আপনিও লিখুন


শেয়ারঃ


এই বিভাগের আরও লেখা