এই মানুষটা নিজের নিরাপত্তার কথা চিন্তা না করে পুরো দেশের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। চাইলে অনেক অজুহাত দেখাতে পারতেন। অর্থনীতির তোয়াক্কা না করে জনগণের কথাই ভাবলেন সবার আগে। তার কাছে সবার আগে দেশ। জনগনই তার অক্সিজেন।

করোনাভাইরাসে কাঁপছে সারা বিশ্ব। এ সংকট মোকাবেলায় এগিয়ে নিজ নিজ রাষ্ট্রের কল্যাণে এগিয়ে এসেছেন বিশ্বনেতারা। তন্মোধ্যে অন্যতম হলেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো। সম্প্রতি তার স্ত্রী সোফি জর্জ আক্রান্ত হয়েছেন করোনাভাইরাসে। তাই তিনি নিজেও রয়েছেন কোয়ারেন্টাইনে। তবুও বসে নেই তিনি। কাজ করে যাচ্ছেন কানাডার জন্য, কানাডার জনগণের জন্য। করোনাভাইরাসে করণীয় যা কিছু আছে সেসব নিয়ে জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দিয়েছেন তিনি। সেটায় হুবুহু বাংলায় হুবুহু তুলে ধরা হলো-

প্রিয় কানাডাবাসী, করোনার বিরুদ্ধে আমাদের একসাথে লড়াই করতে হবে। কোভিড-১৯ আমাদের বাধ্য করছে দৈনিক রুটিন পরিবর্তন করতে। জীবনকে নতুন করে ঢেলে সাজাতে আমাদের বাধ্য করছে এই ভাইরাস। সাময়িকভাবে বন্ধ করতে হবে ব্যাবসা বানিজ্যসহ সবকিছুই। আপনাদের অনেকেই জীবিকা, চাকুরী, আনুষঙ্গিক বিল, সন্তানদের নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছেন। আমরা আপনাদের সাহায্য করবো। 

আমরা ইতিমধ্যেই আপনাদের অর্থনীতি এবং জীবিকা দুইটার নিরাপত্তাই নিশ্চিত করেছি। কর্মসংস্থান থেকে শুরু করে বিনিয়োগ পর্যন্ত সকল বীমা নিশ্চিত করেছি। শুধু ২৭শো কোটি ডলারের পরিকল্পনা করেছি সরাসরি কানাডিয়ানদের জন্য। এই দুর্যোগ মোকাবেলায় আপনাদের সর্বোচ্চ সাহায্য করা হবে। কানাডিয়ানদের আনুষাঙ্গিক সকল সুবিধা প্রদানের জন্য সর্বমোট ৮ হাজার ২শো কোটি ডলার ব্যয় করা হবে। যা কানাডার অর্থনীতির ৩ শতাংশ। 

যদি আপনি অসুস্থ বোধ করেন এবং আপনার কাছে স্বাস্থ্য বীমা কিংবা কর্মক্ষেত্রে ছুটি না থাকে হবে চিন্তা করবেন না। দুই সপ্তাহের রশদ বিনামূল্যে আমরা আপনাকে দেবো। আপনার যদি সন্তান থাকে তবে তার জন্যেও আমরা ব্যবস্থা নেবো। আপনি যদি সার্ভিস ট্যাক্স বাকী থাকে সেটার ভর্তুকিও আমরা দেবো। আপনি যদি উদ্যোক্তা হয়ে থাকেন, কর্মচারীদের বেতনভাতা প্রদানে আমরা আপনাকে সাহায্য করবো। প্রত্যেক কানাডিয়ান নাগরিক যারা গৃহহীন, পারিবারিক কলহের স্বীকার, কৃষক, তরুণ তুর্কী, আদিবাসী সবার জন্যেই আমরা পরিকল্পনা গ্রহণ করেছি। আমরা আমাদের সর্বোচ্চ দিয়ে এ পরিস্থিতি মোকাবেলা করার চেষ্টা করছি।

জাস্টিন ট্রুডো

আমি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সাথেও কথা বলেছি। আমরা আপাতত কানাডা-আমেরিকা বর্ডার বন্ধ রাখছি। আকাশপথে যাতায়াত ইতিমধ্যেই বন্ধ করার ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি। যেসব কানাডিয়ান প্রবাসে রয়েছে তাদের সাহায্যের জনেয় উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। আমরা সাস্থ্যখাতে বিনিয়োগ বাড়াচ্ছি। দেশজুড়ে অসহায় মানুষ যারা একে অপরের সাহায্যে এগিয়ে আসছে, তাদেরকে বলছি- আপনারা একা নন। আমরা আপনাদের সাথে আছি। প্রান্তিক পর্যায়ে দেশের সকল নেতাকর্মী, কমিউনিটি এবং আন্তর্জাতিক মাধ্যমের সাথে যোগাযোগ রাখছি আমরা।

আমরা একসাথে সবাইকে সকল ধরণের সাহায্য প্রদান করার জন্য চেষ্টা করছি। এটা খুব একটা সহজ সময় নয়। আশাকরি, আমরা সকলে একসাথে এই সময়টা সফলতার সাথেই পার করতে পারবো। আমাদের শুধু একাগ্রচিত্তে একত্রিত থাকতে হবে। সবাই নিজের বাসায় থাকুন। নিজ পরিবারের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় সচেতন থাকুন। আমাদের ডাক্তার ও নার্সদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালনে সহযোগিতা করুন। নিজেকে সময় দিন, আত্মবিশ্বাসী থাকুন। কিছু সময়ের জন্য, আমরা নতুন কিছু নিয়ম পালন করবো। অনেকটা সাধারণ জীবনযাপনের মতোই। এটা স্বাভাবিক এখন। এবং আমরা একসাথেই মোকাবেলা করবো।  

(স্যালুট জাস্টিন ট্রুডোকে। সত্যি আপনি একজন যোগ্য রাষ্ট্র নায়ক)   


শেয়ারঃ


এই বিভাগের আরও লেখা