সম্প্রতি ভাইরাল হয়েছে চল্লিশ বছর আগের কলকাতা-লন্ডন বাস জার্নির সংবাদ। ভ্রমনপিপাসুদের জন্যে সেই অতীতই ফিরিয়ে নিয়ে এলো একটি বাস সংস্থা! কীভাবে? সেটাই তো গল্প!

বেশ কিছুদিন আগে একটা খবর বেশ ভাইরাল হলো। পৃথিবীর সবচেয়ে লম্বা রুটের বাস জার্নির খবর। ১৯৬০ সালের দিকে যে বাস কলকাতা থেকে যাত্রা শুরু করে লন্ডনে পৌঁছাতো। ডাবল ডেকার এই বাসটির নাম ছিলো এ্যালবার্ট এবং এই বাস যে ট্রিপগুলো কাভার করতো সেগুলোকে বলা হতো এ্যালবার্ট ট্যুরস। কলকাতা থেকে লন্ডন পৌঁছাতে মোট খরচ হতো তিন মাসেরও কিছু বেশি সময়। এ খবর জানার পরে ভ্রমণপিপাসু মানুষজনের চোখ একটু চকচক করে নিশ্চয়ই উঠেছিলো। তাছাড়া মহামারীর এই সময়ে ঘরে বসে থেকে সবার হাত-পা'য় মোটামুটি বেশ ভালো রকমের জং পড়েছে। সে কারণে এ্যালবার্ট বাসের খবর মানুষকে 'আহা-উহু' করিয়েছে খানিকটা বেশিই। সে সাথে আফসোসও বেড়েছে সবার। কারণ এ্যালবার্টের জার্নি ফুরিয়েছে অনেকদিনই হলো। তাছাড়া বিমানে কয়েক ঘন্টায় যেখানে যাওয়া যাচ্ছে এক দেশ থেকে আরেক দেশে, সেখানে মানুষ বাসে উঠে মাসের পর মাস কেন বসে থাকবে?

কলকাতা থেকে লন্ডনের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাওয়ার আগমুহুর্তে আলোচিত বাস 'এ্যালবার্ট'

তবে প্রকৃত ভ্রমণপ্রেমীরা সময়ের চেয়ে গুরুত্ব দিয়েছেন পথকে বেশি। সে কারণেই আবার ফিরে আসছে ভারত থেকে লন্ডনের সেই দীর্ঘ ও মহাকাব্যিক বাস জার্নি। এবার কলকাতা থেকে না, বাস ছাড়বে দিল্লী থেকে। আঠারোটি দেশ ছুঁয়ে পৌছাবে লন্ডনে।

'এ্যাডভেঞ্চারস ওভারল্যান্ড' নামের এক কোম্পানি ফিরিয়ে আনছে সেই অতীতকে। লাল টুকটুকে এক ডাবল ডেকার বাস আগামী বছরের মে মাস থেকে শুরু করবে দিল্লী টু লন্ডন বাস জার্নি। এবং এই বাস জার্নির সুবিধে হলো, এই বাস যাত্রাপথে কাভার করবে ১৮টি দেশকে। মোট ২০০০০ কিলোমিটার, ১৮টি দেশ, ৭০ দিন। ১৮ টি দেশের মধ্যে রয়েছে- মায়ানমার, থাইল্যান্ড, লাওস, চায়না, কিরখিজস্থান, উজবেকিস্তান, কাজাকস্থান, রাশিয়া, লাটভিয়া, লিথুনিয়া, পোল্যান্ড, চেক রিপাবলিক, জার্মানি, নেদারল্যান্ডস, বেলজিয়াম আর ফ্রান্স। প্রত্যেকটি দেশে থামার পরে সেখানে খানিকটা ঘুরে নেয়ারও সুযোগ থাকবে সবার জন্যে। তাছাড়া লন্ডনে যেতে হলে যে শুধুমাত্র দিল্লী থেকেই উঠতে হবে বাসে, এমনও কোনো নিয়ম নেই। এই ১৭টি দেশের যেকোনো একটি থেকে বাসে উঠলেও হবে।

'বাস টু লন্ডন' যাত্রা শুরু করবে আগামী বছরের মে মাসে! 

'বাস টু লন্ডন' নামের এ বাসে যেহেতু ৭০ দিন থাকতে হবে যাত্রীদের, সেহেতু বাসের মধ্যেই বসবাসের উপকরণ গুলো বরাদ্দ থাকবে সবার জন্যে। যেসব দেশে বাস থামবে, সে সব দেশের ফোর বা ফাইভ স্টার হোটেলে থাকার ব্যবস্থা করে দেবে বাস কর্তৃপক্ষ। এছাড়া এই বাস জার্নির জন্যে মোট দশটি দেশের ভিসা থাকতে হবে যাত্রীদের। তাদের ভিসার ব্যবস্থাও করে দেবে বাস কর্তৃপক্ষ।

বাসে যাত্রী আসন থাকবে বিশটি। এছাড়াও ড্রাইভার সহ বাস এ্যাসিস্ট্যান্ট থাকবেন চারজন। প্রত্যেক দেশে আলাদা আলাদা গাইড থাকবে। চাইলে কেউ দিল্লী থেকে উঠে দুই-তিনটি দেশ ঘুরে আবার চলে আসতে পারবেন। কিন্তু কেউ যদি ভাবে- না, লন্ডন পর্যন্তই তিনি যাবেন, তাহলে খরচটা একটু বেশি হবে। এবং এটাও ঠিক, ভ্রমনপিপাসুরা  এই জার্নির কথা শুনে যতটা খুশি হয়েছিলেন, টিকেটের দাম শুনে পিছিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা কিন্তু ঠিক ততটুকুই। এ বাসে চড়ে পুরো ট্রিপ কাভার করতে হলে খরচ করতে হবে পনেরো  লাখ রূপি! অবশ্য ১৮টি দেশ দেখবেন, সেখানে থাকবেন, ঘুরবেন ফিরবেন, সে হিসেবে ১৫ লাখ রূপি অতটা বেশিও কিন্তু না৷ আবার এ টাকা এককালীন দিতে হবে এমনও কিছু না। ইএমআই এরও সুবিধে আছে এখানে। কিস্তিতে টাকা পরিশোধ করতে পারবেন চাইলে।

আগামী বছরের মে মাসে যেহেতু শুরু হচ্ছে এই জার্নি, হাতে কিছুটা সময় আছে সবারই। টাকাপয়সা জমানোর পাশাপাশি বাক্সপ্যাটরাও গোছানো শুরু করে দিতে পারেন এই বেলায়। ৭০ দিনে বিশ্বভ্রমণ, এ কী চাট্টিখানি কথা, বলুন!

*

প্রিয় পাঠক, চাইলে এগিয়ে চলোতে লিখতে পারেন আপনিও! লেখা পাঠান এই লিংকে ক্লিক করে- আপনিও লিখুন






 


শেয়ারঃ


এই বিভাগের আরও লেখা