কোনো কিছুতেই আপনি দমে যাননি, বরং নতুন উদ্যমে এগিয়ে চলেছেন। যে প্রতিবন্ধকতা আপনাকে আটকাতে পারেনি, সেটা আপনাকে শক্তিশালী করে দিয়ে গেছে।

আপনি টিকে গেছেন। হ্যাঁ, এটাই আপনার সেরা অর্জন। হয়তো ভাবছেন একটা বছর পার করা কিভাবে অর্জন হয়। ঠিক যেভাবে এখনি ভেবে ফেলেছেন নতুন এ বছরটায় হয়তো আর পেরে উঠবেন না। দুই হাজার বিশ সাল হয়তো বিষময় হয়ে যাবে। একটু ভেবে দেখুন, গত বছর এই সময়ে ভাবনা এমনটাই ছিলো। তার আগের বছর, বা তারও আগের বছর। নিজেকে অবাক করে দিয়ে আপনি টিকে গেছেন। আপনি দমে যাননি, বরং নতুন উদ্যমে এগিয়ে চলেছেন। যে প্রতিবন্ধকতা আপনাকে আটকাতে পারেনি, সেটা আপনাকে শক্তিশালী করে দিয়ে গেছে।

ভয় পাবেন না, জীবনে বাধা-বিপত্তি আসবেই। একটিবার চিন্তা করুন, আপনার জীবনে কোনো সমস্যা নেই, অর্জন করার কিছুই নেই, কোনো ঝামেলাই নেই, জীবনটা কি একটু বেশীই পানসে হয়ে যাবে না? জীবন কঠিন হতে পারে, তবে আপনিও তো কম কঠিন না সুইটহার্ট! শাস্তি দেবার লোকের অভাব হবে না কখনো, তবে শিখিয়ে দেয়ার জন্যে কাউকে পাবেন না। অতএব, নিজের ভুলের জন্যে নিজেকে শাস্তি না দিয়ে সেটা থেকে শেখার চেষ্টা করুন। হারিয়ে যান নিজের মধ্যেই, আবার নিজেকেই নতুন করে খুঁজে বের করুন।

নিজেকে জানুন

আপনি যেটা ডিজার্ভ করেন সেটা কখনোই পাবেন না। আপনি যেটা গ্রহণ করবেন, সেটাই আপনার উপর চাপিয়ে দেয়া হবে। আপনাকে দিয়ে এমন অনেক কিছু করানোর চেষ্টা করা হবে যা আপনাকে অস্তিত্বহীন করে দিবে। তাই নিজের আবেগের চেয়ে বিবেকের প্রতি যত্নশীল হোন। তাহলে নিজেকে আর অস্তীত্বহীন হতে হবে না। যেখানে আপনার সঠিক মূল্যায়ন হচ্ছে না, সেখান থেকে বেরিয়ে আসুন। নিজের মূল্য বুঝুন এবং তাতে উপযুক্ত ট্যাক্স বসান। একাকীত্বের ভয়ে কখনো কম্প্রোমাইজ করবেন না, মনে রাখবেন অসৎ সঙ্গের চেয়ে একাকী থাকাও গৌরবের। আপনার অসহায়ত্বের গল্প জগতবাসীর জানার দরকার নেই। কারো কাছ থেকে এপ্রুভাল নেয়ার দরকার নেই। কেউ এসে আপনার যাবতীয় খরচ বহন করে কষ্ট কমিয়ে দিয়ে যাবে না। যা করার আপনার নিজেকেই করতে হবে। যাদের জন্য জান কুরবান করে চলেছেন, তারাই একদিন অট্টহাসি হেসে বলবে, কী দরকার ছিলো?

অতএব, নিজের ত্যাগের গল্প ঢোল পিটিয়ে বলতে যাবেন না, খুব বেশী হলে কয়েক মূহুর্তের করুণা ছাড়া কিছুই পাবেন না। অন্য কারো টাইমলাইনে, নিজেকে জোর করে সেট করতে চাইলেও পারবেন না। শর্ত ছাড়া কেউ আপনাকে ভালোবাসবে না, স্বার্থ ছাড়া জিজ্ঞেসও করবে না আপনার কী অবস্থা। অন্যকে বিশ্বাস করুন, তবে নিজেকে ঠকিয়ে নয়। অন্যকে সাহায্য করুন, তবে নিজের ক্ষতি করে নয়। অন্যকে ভালোবাসুন, সাথে নিজেকেও। বাধ্যগত হয়ে থাকা মানে নিজের কণ্ঠস্বর হারিয়ে ফেলা নয়। এ ধরণী কোনো আলাদিনের প্রদীপ নয়, আপনার সকল সুখের সন্ধান করা তার কাজ না। স্বপ্ন দেখুন, অবশ্যই দেখুন। তবে সেটা জেগে থেকে। ঘুমিয়ে নয়। বাস্তবতা শুধু মেনে নিয়ে নয়, মনে নিয়ে এগিয়ে যান।

সুখের পেছনে না ছুটে, স্বস্তি খুঁজুন। সেটা পেয়ে গেলে কেউ আপনার মানসিক শান্তির ব্যাঘ্যাত ঘটাতে পারবে না। হারুন বা জিতুন, সবার আগে জীবনকে উপভোগ করুন। অভিজ্ঞতাই আপনাকে আপনার লক্ষ্যে পৌঁছে দিবে। অকারণে কিছুই হয় না, এবং সে কারণটা আপনি নিজে। হয়তো এখন ভাবছেন লেখাটা আপনার জন্যেই। কিছুটা বিরক্তিও চলে আসতে পারে। আয়না দেখে বিরক্ত না হয়ে, প্রতিফলন ঠিক করার চেষ্টা করুন।


শেয়ারঃ


এই বিভাগের আরও লেখা